পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত ? পদ্মা সেতুর বিস্তারিত তথ্য ।

বাংলাদেশ

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত ? পদ্মা সেতুর বিস্তারিত তথ্য। পদ্মা সেতু : বাংলাদেশের পদ্মা নদীর উপরে নির্মিত একটি বহুমুখী রেল ও সড়ক সেতু হচ্ছে পদ্মা সেতু । এর মাধ্যমে শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলার সাথে মুন্সিগঞ্জের লৌহজঙ্গের জেলার যুক্ত হয় । বাংলাদেশের বহুমুখী পদ্মা সেতু ২০২২ সালের ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন । এই দিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাওয়া প্রান্তে গিয়ে নিজের ট্রোল প্রদান করে প্রথমবারের মতো পদ্মা সেতুতে আরোহন করেন এবং এর মাধ্যমে সেতুটি উন্মুক্ত করেন জনসাধারণের জন্য ।

বাংলাদেশের এ পর্যন্ত যে কোন নির্মাণাধীন থেকে পদ্মা সেতু ইতিহাসের সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং নির্মাণ প্রকল্প ছিল । দুই তালা বিশিষ্ট এই সেতুর ওপরের স্তরের সড়ক পথ এবং নিচের স্তরে একটি একক রেলপথ রয়েছে । তো বন্ধুরা আজকে আমরা পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য কত কিলোমিটার , সেতুর প্রস্থ কত , সেতুর উচ্চতা , সেতুর স্প্যান কয়টি , পিলার কয়টি , কত টাকা খরচ হয়েছিল , যাবতীয় বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানবো । পদ্মা সেতু সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পোস্ট টি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন ।

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত ? পদ্মা সেতুর বিস্তারিত তথ্য ।

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য কত কিলোমিটার

পদ্মা সেতুর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ৬.১৫ কিলোমিটার , ২০,১৮০ ফুট ।

পদ্মা সেতুর প্রস্থ কত

পদ্মা সেতুর মোট প্রস্থঃ ১৮.১৮ মিটার (৫৯.৬৫ ফুট)

পদ্মা সেতুর উচ্চতা কত

পদ্মা নদীর গভিরতার জন্য সেতুর পাইল জলের নীচে ১২৫.৫ মিটার বা ৪১১.৫০ ফুট গভীর পর্যন্ত বসানো হয়েছে । পদ্মা সেতুর প্রিতিটা পাইল ৪২ তলা ভবনের সমান । পদ্মা সেতুর ইঞ্জিনিয়ারদের হিসাবে, পদ্মা সেতুতে যত পাইল বসানো হয়েছে, সবগুলো পাইল মিলিয়ে মোট উচ্চতা হবে প্রায় ৩৫ হাজার ২৮০ মিটার। যা পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট এর থেকেও অনেক বেশি । যার মোট উচ্চতা ৮ হাজারে ৮৪৮ মিটার। মাউন্ট এভারেস্টের চারগুণেরও বেশি হবে পদ্মা সেতুতে ব্যবহৃত সব পাইলের মোট উচ্চতা ।

পদ্মা সেতুর কাজ কবে শুরু হয়

মূল পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর । ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তের জেলার নাম কি

শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলা মুন্সিগঞ্জের লৌহজঙ্গের জেলা ।

পদ্মা সেতুর অবস্থান

মুন্সিগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা ।

পদ্মা সেতুর বর্তমান অবস্থা

পদ্মা সেতুতে বর্তমানে যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে । এখন সেতুর দুই পাশের মানুষ খুব সহজেই নদী পারাপার হতে পারছে ।

পদ্মা সেতুর বাজেট ২০২২

পদ্মা সেতুর বাজেট প্রথমে ২০০৭ সালে ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ টাকা । কিন্তু পরবর্তিতে এই বাজেট বারিয়ে ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা করা হয় । পরে এই বাজেট বেরে দাড়ায় মোট ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা।

পদ্মা সেতুর খরচ কত

পদ্মা সেতুর নির্মাণ ব্যয় সর্বমোট ৩০,১৯৩ কোটি ৩৯ লক্ষ

পদ্মা সেতুর ঋণ কত

পদ্মা সেতু নির্মানে বাংলাদেশের মোট ঋণ: পদ্মা সেতু নির্মানে মোট ব্যয় বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা । এর মধ্যে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে। বাকি টাকা ঋণ হিসেবে দিয়েছে অর্থ বিভাগ যা প্রায় ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ।

পদ্মা সেতুর অর্থায়ন করেছে কোন দেশ

পদ্মা সেতু নির্মানে বাংলাদেশ এর সাথে চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি চুক্তি হয়েছিলো । সেতুর অর্থায়ন এর টাকার মধ্য ৩০০ কোটি টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে। বাকি টাকা ঋণ হিসেবে দিয়েছে অর্থ বিভাগ যা প্রায় ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ।

পদ্মা সেতুর টোল তালিকা ২০২২

ক্রমিক নংঃযানবাহনটোলের টাকার পরিমান
মোটর সাইকেল১০০
ছোট ট্রাক (৫ টন পর্যন্ত)১৬০০
মাঝারি ট্রাক ( ৫ টন থেকে ৮ টন )২১০০
মাঝারি ট্রাক ( ৮ থেকে ১১ টন )২৮০০
বড় ট্রাক ( তিন এস্কেল পর্যন্ত )৫৫০০
টেইলারের জন্য ৬০০০
কার ও জিপ ৭৫০
মাঝারি বাস২০০০
বড় বাস২৪০০
১০মাইক্রোবাস ১৩০০
১০নিবাসের জন্য১৪০০

পদ্মা সেতুর পিলার কয়টি

পিলারের সংখ্যা ৪২টি, স্প্যান ৪১টি । প্রতি পিলারের জন্য পাইলিং হয়েছে ৬টি। মাটি জটিলতার কারণে ২২টি পিলারের পাইলিং হয়েছে ৭টি করে।

পদ্মা সেতুর স্প্যান কয়টি

পদ্মা সেতুর স্প্যান মোট ৪১ টি ।

পদ্মা সেতুর পাইলিং গভীরতা কত

সেতুর পাইল জলের নীচে ১২৫.৫ মিটার বা ৪১১.৫০ ফুট গভীর পর্যন্ত বসানো হয়েছে

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন

পদ্মা সেতুর উদ্ধোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ জুন ২০২২ ।

পদ্মা সেতুর অর্থনৈতিক গুরুত্ব

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর দেশের মানুষের জন্য সবথেকে বড় অর্জন । বাংলাদেশের বাঙালির জন্য ইতিহাসের সব থেকে বড় মাইলফলক এই পদ্মা সেতু । পদ্মা সেতু বাঙালির জীবনের একটি বড় মাইলফলক এর পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তির উচ্চ মাধ্যম ।

এক সময় পদ্মা সেতু বাঙালির কাছে একটি বড় স্বপ্ন ছিল , এখন পদ্মা সেতু আর কারো কাছে স্বপ্ন নয় পদ্মা সেতু এখন বাঙালির ঐতিহ্য এবং গৌরব গৌরব উজ্জ্বল সোনালী অহংকার । এই পদ্মা সেতুর মাধ্যমে আমরা বিশ্বকে জানিয়ে দিতে পেরেছি যে বাংলাদেশ ছোট হলেও বাংলাদেশকে দাবিয়ে রাখা সম্ভব নয় ।

পদ্মা সেতুর ছবি

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *