বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল কেন

বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল কেন ।

ইতিহাস

বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল কেন । কাঁঠালকে কেনো জাতীয় ফল বলা হয়। আসলে অনেক কারনে কাঁঠালকে আমাদের দেশের জাতীয় ফল হিসেবে মানা হয়, যেগুলো আমরা অনেকেই জানি না এবং জানার চেস্টাও করি না।

আসলে এগুলো আমাদের জানা দরকার। আজকে আমরা জানবো কিভাবে নির্বাচন করা হয়েছিল জাতীয় ফল । কারন যদি আমরা আমাদের দেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল কেন হলো এটা যদি না জানি তাহলে কেমন হলো ব্যাপারটা, যে দেশে বাস করি সেই দেশের জাতীয় ফল নির্ধারন করার কারন জানা আমাদের একটা দায়ীত্ব।

বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল কেন ?

এদেশে কাঁঠাল চেনে না এমন মানুষ পাওয়া অসম্ভব । দেশের সর্বোত্র এই গাছের দেখা পাওয়া যায় । তাছাড়া কোন দেশে একাধিক ফল থাকলেও এমন একটি ফলকে ওই দেশে জাতীয় ফল নির্বাচন করা হয় যার সাথে ওই দেশের সাংস্কৃতির মিল রয়েছে । একটি জাতির হাজার বছরের ইতিহাস এবং ঐতিহ্যের সাথে কোন ফলের যোগ সূত্র থাকলেও সেই ফলকে জাতীয় ফল হিসেবে নির্বাচন করার জন্য বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয় । আর এক্ষেত্রে অনেকেরই মত কাঁঠালের জন্ম বাংলাদেশ কিংবা এ দেশের আশেপাশের দেশের ।

এছাড়া কাঁঠালকে জাতীয় ফলের স্বীকৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রে এই ফলের উপকারিতা এবং গুণগত মান কেও মাথায় রাখা হয়েছিল । শুধু মানুষই নয় এই গাছের ফল এবং পাতাও গবাদী পশুর জন্য খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয় ,

এছাড়াও কাঁঠাল গাছের কাঠ বেশ উন্নত মানের , এই গাছের কাঠ দিয়ে অনেক সুন্দর সুন্দর ফার্নিচার তৈরি করা যায় টেকসই হয় অনেকদিন ।

আবার জাতীয় ফল হিসেবে আসতে পারতো আমের কথাও , কারণ বাংলাদেশের মানুষের কাছে আম একটি জনপ্রিয় ফল । কিন্তু আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে এর জাতীয় ফল আম , তাই আমাদের দেশের জাতীয় ফল হিসেবে আমকে নির্বাচন করা হয়নি ।

আমকে জাতীয় ফল হিসেবে নির্বাচন করা না হলেও আম গাছকে জাতীয় গাছ হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে । এ সকল বিষয় বিবেচনা করে কাঁঠাল কে বাংলাদেশের জাতীয় ফল হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে । একটা ফলকে যেমনি অনেক দিক বিবেচনা করে নির্বাচন করা হয় তেমনি একটি পাখিকে জাতীয় পাখি হিসেবে নির্বাচন করার জন্য অনেক দিক বিবেচনা করা হয়।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *