মেট্রোরেল তথ্য

মেট্রোরেল তথ্য ও এর বিশদ বিবরন

বাংলাদেশ

মেট্রোরেল তথ্য ও এর বিশদ বিবরন: দক্ষিণ এশিয়া দেশ গুলোর মধ্য সব থেকে বেশি যানজট এবং জনসংখ্যা বহুল শহর হচ্ছে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহর । ঢাকা শহরের অতি জনবহুল ক্রমবর্ধমান যানবাহন সমস্যা ও পথের দুঃসহ যানজট কমিয়ে আনার লক্ষ্যে ২০১৩ সালে কৌশলগত পরিবহন পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয় যার অধীনে প্রথমবারের মতো ঢাকা মেট্রোরেল স্থাপন পরিকল্পনা করা হয়েছিল । প্রথমে মেট্রোরেলের লাইনে সংখ্যা তিনটি থাকলেও পরবর্তীতে ২০১৬ সালে প্রণীত সংশোধিত কৌশল পরিবহন পরিকল্পনা অনুসারে লাইনের সংখ্যা তিনটি থেকে বাড়িয়ে পাঁচটি করা হয় । মেট্রোরেল বাংলাদেশের জনগণের জন্য একটা স্বপ্নের মত ছিল যা এখন বাস্তবে রূপ নিয়েছে । আজকে আমরা জানবো , মেট্রোরেল কি , মেট্রোরেলের দৈর্ঘ্য কত , মেট্রোরেল সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান , মেট্রোরেলের খরচ , মেট্রোরেলের সুবিধা , মেট্রোরেলের ভাড়া সহ যাবতীয় বিষয় । মেট্রোরেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আজকের পোস্টটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন ,

মেট্রোরেল কি

ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় নির্দিষ্ট শহর বা জায়গায় যে গণপরিবহন দ্রুত চলাচল করে সে রেল ব্যবস্থার নামে মেট্রোরেল । মেট্রো শব্দের অর্থ হল মেট্রোপলিটন বা নগর। অথবা এভাবে বলা যায় যে , যে রেল শুধুমাত্র টাউন বা সিটির মধ্য চলাচল করে সে সমস্ত রেলকে মেট্রোরেল বলে ।

মেট্রোরেল তথ্য ও এর বিশদ বিবরন

মেট্রোরেলের দৈর্ঘ্য কত

মেট্রোরেলের পথের দৈর্ঘ্য ২০.১ কিমি ।
১০৮.৬৪১ (পরিকল্পিত)

মেট্রোরেল সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

মেট্রোরেল কাজ শুরুঃ ২০১৭ সালে ।
মেট্রোরেল এর সবোর্চ গতিঃ প্রায় ১০০কিমি/ঘন্টা ।
মেট্রোরেলের দৈর্ঘ্যঃ উত্তরা থেকে কমলাপুর প্রায় ২২ কিমি ।
মেট্রোরেলের ভাড়াঃ সর্বোচ্চ ১০০ টাকা ও সর্বনিম্ন ২০ টাকা ।
মেট্রোরেলের সহযোগী প্রতিষ্ঠানঃবাংলাদেশ এর জাইকা – জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি ।
মেট্রোরেলের প্রকল্পব্যয়ঃ ৩৩ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা ।
মেট্রোরেলের যাত্রী পরিবহন ক্ষমতাঃ প্রতিদিন ৫ লক্ষ ঘন্টায় ৬০ হাজার।
মেট্রোরেলের শীতাতপ নিয়ন্ত্রনঃ প্রতিটি কোচ এসি।
মেট্রোরেলের সাপ্তাহিক বন্ধঃ মঙ্গলবার।
মেট্রোরেলের অর্থায়নঃ বাংলাদেশ সরকার ২৫% ও জাইকা ৭৫%।
মেট্রোরেলের উদ্বোধনঃ উদ্বোধন হয় ২৮ ডিসেম্বর ২০২২ ।
মেট্রোরেল প্রকল্প বাংলাদেশ ।

মেট্রোরেলের খরচ

মেট্রোরেল এর প্রকল্প ব্যায় মোট ৩৩ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা ।

মেট্রোরেল অর্থায়ন

মেট্রোরেলের অর্থায়ন করেন বাংলাদেশ ও জাইকা – জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি । বাংলাদেশ সরকার ২৫% ও জাইকা ৭৫%।

মেট্রোরেলের অর্থনৈতিক গুরুত্ব

মেট্রোরেল বাংলাদেশেরর ইতিহাসে একটি বড় অর্জন । মেট্রোরেল ঢাকা শহরের যানজট সমস্যা কে অনেকাংশ কমিয়ে দিতে পারবে বলে আশা করা যায় ।

মেট্রোরেলের প্রতিঘণ্টায় যাত্রী পরিবহন সক্ষমতা-

প্রতিদিন ৫ লক্ষ ঘন্টায় ৬০ হাজার।

মেট্রোরেল ভাড়ার তালিকা

মেট্রোরেল তথ্য

মেট্রোরেলের স্টেশন সংখ্যা

মেট্রোরেলের মোট স্টেশন সংখ্যা ১৭ টিঃ (উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর ১১, মিরপুর ১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, মতিঝিল ও কমলাপুর)

মেট্রোরেল সম্পর্কে আরো তথ্য জানুন

মেট্রোরেল কোথায় থেকে কোথায় যাবে

মেট্রোরেল শুরুতে উওরা থেকে আগারগাও পর্যন্ত যাবে ।

মেট্রোরেলের সময়সূচি

মেট্রোরেল প্রথম অবস্থায় সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলাচল করবে । পরবর্তিতে সময় পরিবর্তন হতে পারে । বর্তমানের মেট্রোরেল সুধু উত্তরা ও আগারগাও এ থামবে ।

মেট্রোরেলের প্রথম নারী চালক

মেট্রোরেল চালু হবার পর প্রথম চালক ছিল একজন নারী যার নাম মরিয়ম আফিজা
তিনি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিস্ট্রি অ্যান্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর পাস করেছেন ।

মেট্রোরেল প্রকল্প পরিচালক

ঢাকা ম্যাস র্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমন্টে প্রজেক্টের (মেট্রোরেল, লাইন-৬) প্রকল্প পরিচালক আফতাব উদ্দিন তালুকদার ।

সরকারি কোন প্রতিষ্ঠান মেট্রোরেল প্রকল্পের দায়িত্বে রয়েছে

র‍্যাপিড ট্রানজিট বা সংক্ষেপে এমআরটি ।

মেট্রোরেল ষ্টেশন এ জাপানিজ ইঞ্জিনিয়ারদের নাম

০১ জুলাই ২০১৬ তারিখে ঢাকা ম্যাস র‍্যাপিড ট্রান্সজিট প্রকল্পে কর্মরত অবস্থায় নিহত হন সাত জাপানিজ প্রকৌশলী। এই সাত ইঞ্জিনিয়ারদের নাম হলোঃ

  1. হাসিমোতো হিদেকি
  2. কুরোসাকি নোবুহিরো
  3. ওগাসাওয়ারা কোয়ো
  4. ওকামুরো মাকোতো
  5. সাকাই ইউকো
  6. শিমোদাইরা রুই
  7. তানাকা হিরোশি
Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *