বাংলাদেশের জাতীয় পাখির নাম কি

বাংলাদেশের জাতীয় পাখির নাম কি । দোয়েলকে জাতীয় পাখি বলার কারণ

ইতিহাস

বাংলাদেশের জাতীয় পাখির নাম কি? দোয়েলকে জাতীয় পাখি বলার কারণ? আমরা এমন করে কখনোই ভাবিনি যা আমাদের ভাবা উচিত ছিল। আর ভাব্যই কেন এটাতো আমাদের দৈনন্দিন জীবনেতো আর লাগে না। আসলে আমাদের দেশের সকল মানুষ জানে বাংলাদেশের জাতীয় পাখি দোয়েল, কিন্তু এটা কেন হলো তা জানার কোন ইচ্ছাই করে না। তাই আজকে আমরা জানবো কিভাবে নির্বাচন করা হয়েছিল জাতীয় পাখি ।

বাংলাদেশের জাতীয় পাখির নাম কি? এটা জানার পর এখন জেনে নিন দোয়েলকে কেনো বাংলাদেশের জাতীয় পাখি মানা হয় ।

জানা গেছে জাতীয় পাখি নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দোয়েলের সাথে ছিল শালিক, দোয়েল , বক সহ আরো তিন চারটি পাখির নাম । অথচ দোয়েলকেই জাতীয় পাখি হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে । কারণ এই পাখিটি শহরে গ্রামে সব জায়গাতে দেখা যায় , শহর বন বাগান থেকে শুরু করে গ্রামের পুকুর ডোবার পাশে ও পাখিটি দেখা মেলে এবং সব ধরনের মানুষ এই পাখিটিকে সমান ভাবেই চিনে । দোয়েল পাখির মত এ দেশের খুব কম পাখিরই অবস্থান রয়েছে এমন জায়গাতে ।

সাধারণত যে পাখি শহরে থাকে সে বনে জঙ্গলে থাকতে পারেনা , বাসস্থান কিংবা খাদ্যের কারণে । আবার যে পাখি জঙ্গলে থাকে সে পাখি শহরে থাকতে পারে না , কিন্তু দোয়েল পাখি সব জায়গাতেই থাকতে পারে । এছাড়া দোয়েল কিন্তু অন্য কোন দেশের জাতীয় পাখি না ।

এখন আপনাদের মনে একটা প্রশ্ন জাগতেই পারে কাক পাখি ও দেশের সর্বোচ্চই পাওয়া যায় তাহলে কাক পাখিকে কেন জাতীয় পাখি নির্বাচন করা হলো না । মূলত কাকের স্বভাবগত কারণেই আমাদের প্রিয় পাখির তালিকায় পড়ে না ।

অন্য দিকে দোয়েল একটি শান্তিপ্রিয় পাখি কখনোই তারা মানুষের কোন ক্ষতি করে না এবং দোয়েল পাখি রয়েছে সুমধুর গানের গলা । গ্রামের ভোরবেলা দোয়েল পাখি পরিবেশকে অনেক সুন্দর করে তোলে তার গানের গলার মাধ্যমে । সবদিক বিবেচনা করে দোয়েল কে জাতীয় পাখি হিসেবে মনোনীত করা হয়েছিল যে রকম ভাবে নির্বাচিত করা হয় একটাি দেশের জাতীর ফল

পরিশেষে এ কথা বলা যায় যে, সকল দিক বিবেচনা করেই একটা জাতীয় পাখি নির্বাচন করা হয়।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *